1. dailydeshbidesh@gmail.com : admin :
  2. deshbiseh@gmail.com : Adbul Wahid : Adbul Wahid
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১০:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের পুরাতন মালামাল কম দামে গোপনে বিক্রি করায় জনতা কর্তৃক আটক।। জগনাথপুরে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা প্রশাসনের প্রেস ব্রিফিং জগন্নাথপুরে পেক আইডি দিয়ে সংক্রান্ত পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপ-প্রচারে এলাকাবাসীর নিন্দা , থানায় জিডি দায়ের ।। জগন্নাথপুরের হবিবপুরে ভূমি সংক্রান্ত বিষয়কে কেন্দ্র করে গ্রামের মান ক্ষুন্ন করায় প্রতিবাদ সভা।। যুক্তরাজ্য প্রবাসী কে মোবাইল ফোনে হুমকি দিল জার্মান প্রবাসী জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসীকে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানি, এলাকাবাসীর নিন্দা।। জগন্নাথপুরে পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার- ৫ জগন্নাথপুরে মিথ্যা মামলাসহ বিভিন্নভাবে হয়রানির প্রতিবাদে গ্রামবাসীর তীব্র নিন্দার ঝড় # জগনাথপুরে মাদ্রাসার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠান সম্পন্ন

জগন্নাথপুরে হাওর রক্ষা বাঁধে দীর্ঘদিন যাবত ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি।

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ১৪৫

আব্দুল ওয়াহিদ,
জগন্নাথপুর সুনামগঞ্জ থেকে।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ফসল রক্ষা বেড়ীবাঁধে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি নতুন কিছু নয়।এ অনিয়ম দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে।
অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে কৃষকদের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে একটি সক্রিয় দুর্নীতিবাজ চক্র । প্রতি বছর এ চক্র সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ফসল রক্ষা বাঁধকে পুঁজি করে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।আর এই সিন্ডিকেটর মুল হোতা জগন্নাথপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড এর এস ও হাসান গাজী। জগন্নাথপুর ফসল রক্ষা বেড়ীবাঁধে এসও হাসান গাজী একাই একশ । তার বিরুদ্ধে বার বার কৃষকদের অভিযোগ থাকা সত্তে ও অদৃশ্য কারণে সে এখনও রয়েছে বহাল তবিয়তে। তার বিরুদ্ধে উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যান, সদস্য ও কৃষকদের বিভিন্ন সময়ে ঘোষ দুর্নীতির ও অনিয়মের অভিযোগ থাকলেও ব্যবস্থা নিচ্ছেনা উর্ধতন কর্তিপক্ষ।

তথ্য অনুসন্ধানে জনপ্রতিনিধ, কৃষক ও সাধারণ মানুষ কর্তৃক প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে জানাযায়,দীর্ঘদিন ধরে
জগন্নাথপুর ফসল রক্ষা বেড়ীবাঁধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির দুর্গন্ধে ভরপুর ফসল রক্ষা বেরিবাঁধ।
দুর্নীতিবাজ পাওবো কর্মকর্তা হাসান গাজী যোগদানের পর থেকে উপজেলা ফসল রক্ষা বেড়ীবাঁধকে পুঁজি করে দুর্নীতিবাজ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে শুরু হয় বেড়ীবাঁধের টাকা আত্মসাধের মহা উৎসব। দেওয়া হয় নামে বেনামে ফসল রক্ষা বেড়ীবাঁধের কমিটি।

সরজমিনে হাওর ঘুরে দেখা যায়, নলুয়ার হাওর পোন্ডার ১ এর ৮নং পিআইসির ২২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। ৮ নং পিআইসির সভাপতি রশিদ উল্লার ও সদস্য সচিব সুশিল চন্দ দাশ বেড়ীবাঁধে উপস্থিত নেই। তাদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে রশিদ উল্লা বলেন কমিটির ব্যাপারে আমার কিছুই জানা নেই, কমিটির বিষয়ে রান্টু মেম্বার সব কিছু বলতে পারবেন।

কত টাকার কাজ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন ৪/৫ লাখ টাকার কাজ আমার অংশে হতে পারে বলে তিনি কল খেটে দেন। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে এসও হাসান গাজী বলেন সাংবাদিকদের ভুল তথ্য দেওয়ার কারণে ৮ নং পিআইসির সভাপতি রশিদ উল্লা অফিসে এসে ক্ষমা চেয়েছে,হাওর রক্ষা বাঁধে অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন যারা আমার বিরুদ্ধে কথা বলে তাদেরকে দিয়ে হাওরের কাজ করান আমি আর কাজ করবনা।

এই বিষয়ে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও জেলা কাবিটা স্কীম বাস্তবায়ন ও মনিটরিং কমিটি সভাপতি দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী বলেন এই বিষয়টি আমি গুরুত্ব সহকারে দেখবো আগামীকাল বৃহস্পতি বার আমি জগন্নাথপুর আসবো।

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Comments are closed.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 দৈনিক দেশ বিদেশ
Design and developed By: Syl Service BD