1. dailydeshbidesh@gmail.com : admin :
  2. deshbiseh@gmail.com : Adbul Wahid : Adbul Wahid
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৫:৪৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের পুরাতন মালামাল কম দামে গোপনে বিক্রি করায় জনতা কর্তৃক আটক।। জগনাথপুরে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা প্রশাসনের প্রেস ব্রিফিং জগন্নাথপুরে পেক আইডি দিয়ে সংক্রান্ত পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপ-প্রচারে এলাকাবাসীর নিন্দা , থানায় জিডি দায়ের ।। জগন্নাথপুরের হবিবপুরে ভূমি সংক্রান্ত বিষয়কে কেন্দ্র করে গ্রামের মান ক্ষুন্ন করায় প্রতিবাদ সভা।। যুক্তরাজ্য প্রবাসী কে মোবাইল ফোনে হুমকি দিল জার্মান প্রবাসী জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসীকে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানি, এলাকাবাসীর নিন্দা।। জগন্নাথপুরে পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার- ৫ জগন্নাথপুরে মিথ্যা মামলাসহ বিভিন্নভাবে হয়রানির প্রতিবাদে গ্রামবাসীর তীব্র নিন্দার ঝড় # জগনাথপুরে মাদ্রাসার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠান সম্পন্ন

এসএসসি ব্যাচ 2021 ব্যবসায় উদ্যোগ ৮ম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট অ্যাসাইনমেন্ট প্রশ্ন উত্তর সমাধান

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৭৪

এসএসসি ব্যাচ 2021 ব্যবসায় উদ্যোগ ৮ম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট অ্যাসাইনমেন্ট প্রশ্ন উত্তর সমাধান

সুরুজ্জামান শিমুল, সুনামগন্জ।

স্তর: এসএসসি পরীক্ষা ২০২১

বিভাগ: ব্যবসায় ‍শিক্ষা

বিষয়: ব্যবসায় উদ্যোগ

বিষয় কোড: ১৪৩

মোট নম্বর: ১৬

অ্যাসাইনমেন্ট নম্বর: ০৬

অধ্যায়ের শিরােনাম: অধ্যায়-চতুর্থ; মালিকানার ভিত্তিতে ব্যবসায়।

অ্যাসাইনমেন্ট: প্রাচীনতম ও জনপ্রিয় ব্যবসায় সংগঠন হিসাবে একমালিকানা ব্যবসায় এখনাে অপ্রতিদ্বন্দ্বীবক্তব্যের যথার্থতা নিরূপণ।

শিখনফল/বিষয়বস্তু:

১। একমালিকানা ব্যবসায়ের সংজ্ঞা, বৈশিষ্ট্য ও সুবিধাঅসুবিধা ব্যাখ্যা করতে পারবাে

২। একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্রসমূহ ও জনপ্রিয়তার কারণগুলাে ব্যাখ্যা করতে পারবাে

নির্দেশনা (সংকেত/ধাপ/পরিধি):

ক• একমালিকানা ব্যবসায়ের ধারণা।

খ• একমালিকানা ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্য।

গ• একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্রসমূহ।

ঘ• একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণ

(ক)উওর: একমালিকানা ব্যবসায়ের ধারনা
সাধারন ভাবে একজন ব্যাক্তির মালিকানা প্রতিষ্ঠিত মালিকানায় পৃথিবীর সর্বপ্রথম ব্যবসায় কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এজন্য এটিকে সবচেয়ে প্রাচীনতম ব্যবসায় সংগঠন বলা যায়।
বর্তমান প্রেক্ষাপট বলা যায়, মুনাফা অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে যখন কোনো ব্যাক্তি নিজ দায়িত্বে মূলধন যোগাড় করে কোনো ব্যবসায় গঠন ও পরিচালনা করে এবং উক্ত ব্যবসায়ে অর্জিত সকর লাভ নিজে ভোগ করে বা ক্ষতি হলে নিজেই তা বহন করে, তখন তাকে একমালিকানা ব্যবসায় বলে।
একমালিকানা ব্যবসায় গঠন অত্যন্ত সহজ। যে কোনো ব্যাক্তি নিজের উদ্যোগ স্বল্প অর্থ নিয়ে এ জাতীয় কারবার শুরু করতে পারেন। সাধারণত এ জাতীয় ব্যবসায়ের আয়তন ছোট হয়। তবে প্রয়োজনে মালিক একাধিক কর্মচারী নিয়োগ করতে পারেন এবং অধিক অর্থও বিনিয়োগ করতে পারেন। ‍আইনের চোখে একমালিকানা ব্যবসায়ের তেমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।
মোটকথা, মুনাফা অর্জনের উদ্দেশ্যে নিয়ে একক ব্যক্তি যখন নিজ দায়িত্ব পুজিঁর সংস্থান করে ব্যবসায় সংগঠন গড়ে তুলে নিজেই তা পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রন করে এসকল দায় ও ঝুকি বহন করে এবং অর্জিত মুনাফর সবটুকু একাই ভোগ করে তখন ওই ব্যবসায় সংগঠনকে একমালিকানা ব্যবসায় বলে।

খ) উওর:একমালিকানা ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্য
ব্যবসায়ী যাত্রা থাকে যে সংগঠনেরনা মাধ্যমে শুরু করা হয়েছিল তাই একমালিকানা ব্যবসায়। প্রাচীন ধর্ম ব্যবসায়ী সংগঠন যে সকল বিশিষ্ট এর কারেণ নিজস্ব স্বকীয়তা নিয়ে উদ্ভাবন অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে টিকে আছে তা নিম্নে আলোচনা করা হলো:
একমালিকানা: এরূপ ব্যবসায়ীক মালিক মালিক সরবরাহ একজন মাত্র ব্যক্তি।যে নিজ দায়িত্বে পুঁজি সংস্থান করে ব্যবসায় গঠন ও পরিচালনা করে এবং সকল ঝুঁকি বহন ও মুনাফা ভোগ করে।
সহজ সংগঠন: এ ব্যবসায় সাংগঠনিক তেমন কোনো জটিলতা নেই। আইনগত ঝামেলা না থাকায় পারে সেটা কি জিনিস সেবক সংগীত না অল্প পুঁজি নিয়ে যে কেউ সহজে এরূপ ব্যবসায় গঠন ও পরিচালনা করতে পারে। তবে আমাদের দেশে নিয়ম অনুযায়ী পৌর এলাকায় এরূপ ব্যবসায় গঠনের ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করার বিধান রয়েছে।
স্বল্প মূলধন: একক মালিকের সমর্থন সীমাবদ্ধতা ও ব্যবসায় এর পরিসর সীমিত হওয়ার কারণে এরূপ ব্যবসায় সাধারণত স্বল্প মূলধন বিশিষ্ট হয়ে থাকে। আমাদের পাশের মুদির দোকান বাজারে ছোটখাটো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হোটেল-রেস্তোরাঁ সমূহ এধরনের ব্যবসায় সংগঠন।
সীমিত আয়তন: স্বল্প মূলধন এবং মালিকের একক সাংগঠনিক সমর্থন সীমাবদ্ধতার কারণে এরূপ ব্যবসায় সাধারণত সীমিত আয়তন বিশিষ্ট হয়ে থাকে ।ফলে এতে সম্প্রসারণের সুযোগ তেমন থাকে না।

নিজস্ব ব্যবস্থাপনায়: এরূপ ব্যবসায়ের সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব মালিক নিজেই পালন করে অবশ্য প্রয়োজন হলে মালিক পরিবারের সদস্যদের নিকট হতে ভুক্ত কর্মচারী নিয়োগ করে তাদের সহযোগিতা নিতে পারেন।
একক কর্তৃত্ব ও নিয়ন্ত্রণ: এ ধরনের ব্যবসায় মালিকের একক নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হয় ।এক্ষেত্রে মালিক একচ্ছত্র কর্তৃত্বের অধিকারী এবং কোন বিষয়ে সে অন্য কারো সাথে পরামর্শ করতে বাধ্য নয়।
একক ঝুঁকি: এ ক্ষেত্রে ঝুঁকি বণ্টনের কোনো সুযোগ থাকে না। অর্থাৎ ব্যবসা এর সকল ক্ষতির দায়িত্ব একক মালিকের ওপর বর্তায। যে কারণে মালিককে সব সময় অত্যন্ত সতর্ক থাকতে হয়।
লোকসান বন্টন: এতে লাভ লোকসান বন্টনে কেউই ভাগীদার হয়না। তাই লোকসান হলে যেমনি মালিক তা একাই বহন করে তেমনি মুনাফা হলে সমুদয় সে একাই ভোগ করে।
সরকারি বাধা-নিষেধ মুক্ততা: এরূপ ব্যবসায় আইনের দৃষ্টিকোণ হতে সরকারি বিধি বিধান মুক্ত। আইন সৃষ্ট প্রতিষ্ঠান না হওয়ার কারণে একে গঠন ও পরিচালনার কোন ক্ষেত্রে আইনগত আনুষ্ঠিকতা ও নিয়ম নীতি পালন করতে হয় না।
অনিশ্চিত স্থায়িত্ব: স্বল্প পুঁজি বিশিষ্ট ছোট ধরনের এই ব্যবসায়ী স্থায়িত্ব সবসময় অনিশ্চিত থাকে ।মালিক ইচ্ছা করলে যেকোনো সময় এর ব্যবসা বন্ধ করে দিতে পারে এছাড়া তাঁর মৃত্যু বা যে কোন বিরূপ পরিবেশে এর ব্যবসা এর অস্তিত্ব বিপন্ন করে।
উপসংহার: উপরোক্ত বৈশিষ্ট্যগুলি বিশ্লেষণে দেখা যায় একমালিকানা ব্যবসায় অত্যন্ত সহজ প্রকৃতির ব্যবসায় সংগঠন। জটিলতা মুক্ত হওয়ার কারণে অসীম দায় একক যুগের মতো কিছু ইতিবাচক বৈশিষ্ট্য থাকার পরেও এটি সকল সমাজেই অদ্যবধি অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্যবসায় সংগঠন।

গ)উওর: একমালিকানা ব্যবসায় উপযুক্ত ক্ষেত্র সমূহ
একমালিকানা ব্যবসায় প্রাচীনতম ব্যবসা হিসেবে বিশ্বের উন্নত ও উন্নয়নশীল ও উন্নত সকল দেশেই স্বীকৃত। প্রাচীনতম ব্যবসায় হলেও বর্তমান বৃহদায়তন ব্যবসায় সাথে প্রতিযোগিতা করে এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যবসা হিসেবে টিকে আছে। একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্র সমূহ বর্ণনা করা হলো:
১/অনেকে আছেন যাদের হাতে প্রাপ্ত অর্থ নেই অথচ ব্যবসা শুরু করতে আগ্রহী। আত্মকর্মসংস্থানে উদ্যোগী এমন হাজার হাজার লোকের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে উপযুক্ত। যেমন চায়ের দোকান ছোট খাবারের দোকান কুটিরশিল্পের দোকানটায় শিল্পের দোকান।
২/এমন কিছু ব্যবসা আছে যেগুলোর জন্য বেশি অর্থের প্রয়োজন পড়ে না। সে জাতীয় ব্যবসায় এর জন্য একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে বেশি উপযোগী বিবেচিত হয়। যেমন পানের দোকান, সবজির দোকান।
৩/যে সকল ব্যবসায় ঝুঁকি একেবারেই কম সেগুলোর জন্য একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত। কেননা কম আয় এর ব্যক্তিরা সাধারণত ঝুকি এড়িয়ে চলতে চান ফলে তারা এমন ব্যবসায় বেশি পছন্দ করেন। যেমন চালের দোকান ওষুধের দোকান।
৪/কিছু কিছু ব্যবসায়ী আছে যেগুলোর প্রদত্ত পণ্য বা সেবার চাহিদা বিশেষ বিশেষ এলাকা বা নির্দিষ্ট শ্রেণীর গ্রাহকদের নিকট সীমাবদ্ধ। সেসব পণ্য বা সেবার ক্ষেত্রে একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত।
৫/পচনশীল জাতীয় পণ্য যেমন ফলমূল-শাকসবজি মাছ মাংস ইত্যাদি ব্যবসায় সাধারণত একমালিকানা ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে।
৬/ডাক্তারি প্রকৌশল ও আইন ব্যবসার মতো ক্ষুদ্র আকারে পেশাভিত্তিক ব্যবসায় এবং প্রত্যক্ষ সেবাধর্মী ব্যবসায় যেমন লন্ড্রী সেলুন বিউটি পার্লার ইত্যাদি সাধারণত এক মালিকানার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে।
৭/প্রাচীনতম ও জনপ্রিয় ব্যবসায় সংগঠন হিসাবে একমালিকানা ব্যবসায় এখনাে অপ্রতিদ্বন্দ্বী-বক্তব্যের যথার্থতা নিরূপণ।
৮/কৃষিজাত পণ্য ও সহায়ক পণ্যের ব্যবসার জন্য একমালিকানা বেশি উপযুক্ত। যেমন ধান ব্যবসায় আলু ব্যবসায় ও কাঁচামালের ব্যবসায়। স্থানীয় বা জাতীয় পর্যায়ে বই খাতা পত্র পত্রিকা ইত্যাদি প্রকাশনা ব্যবসার জন্য একক মালিকানা ভিত্তিক ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত
উপসংহার:অতএব বলা যায় যে ব্যক্তিগত উদ্যোগ স্বাধীনচেতা মনোভাব স্বল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে একমালিকানা ব্যবসায় যেকোন সময় যেকোন স্থানে শুরু করা যায়।এ ব্যবসায় আইনি জটিলতা মুক্ত এবং এতে ঝুঁকিও কম। তাই সকলের নিকট এ ব্যবসায় জনপ্রিয়তা বেশি।

ঘ) উওর:একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণ
একমালিকানা ব্যবসায় প্রাচীন ধরনের ক্ষুদ্রায়তন প্রাকৃতিক সংগঠন হলেও বর্তমান প্রতিযোগিতামূলক বৃহদায়তন ও জটিল ব্যবসায় জগতে তা ব্যাপক জনপ্রিয় ব্যবসায় সংগঠন। এরূপ ব্যবসায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে তা নিম্নে আলোচনা করা হল:
১/সহজ গঠন: একমালিকানা ব্যবসায় গঠনে কোন আইনগত আনুষ্ঠানিকতা পালন করতে হয় না। একক মালিক হচ্ছে ইচ্ছে করলে সহজেই এরূপ ব্যবসায় সংগঠন করতে পারে বিধায় শিক্ষিত-অশিক্ষিত ধনী-গরীব সকলেই নিকটে এ ব্যবসায় অত্যন্ত সমাদৃত
২/স্বল্প পুঁজির ব্যবসা: এরূপ ব্যবসায়ী সাধারণত ক্ষুদ্র প্রকৃতির হয়। ফলে এর গঠন ও স্বল্প পুঁজির প্রয়োজন পড়ে। সে কারণে যে কেউ সামান্য সঞ্চয় দিয়ে বা প্রয়োজনে ঋণ করে সহজেই এরূপ ব্যবসায়ী তুলতে পারে।
৩/মালিকের স্বাধীনতা: এক্ষেত্রে একক মালিকানা কারণে মালিকের একক কর্তৃত্ব ও ক্ষমতা বজায় থাকে এবং কোন কাজেই সে অন্যের নিকট জবাবদিহি করতে বাধ্য থাকে না।
৪/পরিচালনাগত সুবিধা: ক্ষুদ্রায়তন প্রকৃতির ব্যবসায় মালিকের একক কর্তৃত্ব, আইনগত ঝামেলামুক্ত তাই ইত্যাদির কারণে এর ব্যবসা পরিচালনা অত্যন্ত সহজ।
৫/ক্ষেত্রগত সুবিধা: ব্যবসায়ের এমন কিছু ক্ষেত্র রয়েছে যেখানে ক্ষুদ্রতম একমালিকানা ব্যবসায়ের কোন বিকল্প নেই। এই কারণেও এ রোগ ব্যবসায় অধিক্য পরিলক্ষিত হয়।
৬/ঝুকির স্বল্পতা: স্বল্প পুঁজির ক্ষুদ্র মালিকানা ব্যবসায় ঝুঁকির পরিমাণ স্বভাবতই কম হয়। এছাড়াও মালিক নিজেই এ ব্যবসা পরিচালনা করে এছাড়া মালিক নিজেই এ ব্যবসায় পরিচালনা করে বিধায় সে অত্যন্ত যত্ন ও সতর্কতার সাথে তা পরিচালনা করেন।
৭/হিসাব রাখার সুবিধা: ব্যবসায় স্বল্প আয়তন সহজ লেনদেন আইনগত বাধ্যবাধকতা মুক্ততা ইত্যাদি কারনে এরূপ ব্যবসায় হিসাব রাখাও খুব সহজ। একক মালিক নিজ্বেস্ব পরিচালনায় সুবিধামত হিসাব সংরক্ষন করতে পারে। যে কারনে অনেকের নিকট এ ব্যবসায় অধিক জনপ্রিয়।
উপসংহার:অতএব বলা যায় একমালিকানা ব্যবসায় ভোক্তা তথা আপামর জনগোষ্ঠি অত্যন্ত কাছে থেকে যেমনি তাদের প্রয়োজন মাফিক পন্য ও সেবা সুবিধা প্রদান করতে পারে তেমনি ব্যবসায়ীরাও অধিক সংখ্যায় এরূপ ব্যবসায় গঠন করে সহজে আয় রোজগার করতে পারে।

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Comments are closed.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 দৈনিক দেশ বিদেশ
Design and developed By: Syl Service BD